নীলাকাশ টুডেঃ কয়েক দশক ধরে কুখ্যাত এক সিরিয়াল কিলারকে ধরার চেষ্টা করছিল পুলিশ। অবশেষে পুলিশের ৩৫ বছরের অভিযান শেষ হয়েছে ওই ব্যক্তির আত্মহত্যার মধ্য দিয়ে। নিজের সুইসাইড নোটে ধর্ষণ ও খুনের স্বীকার করেছেন তিনি। ডিএনএ পরীক্ষাতেও মিলেছে ছয়টি ধর্ষণ ও চার খুনের সঙ্গে ওই ব্যক্তির জড়িত থাকার প্রমাণ।

শুক্রবার একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ১৯৮৬ থেকে ১৯৯৪ সাল পর্যন্ত প্যারিসে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছিলেন ফ্রাঙ্কোয়া ভেরোভ নামে ফ্রান্সের সাবেক সামরিক পুলিশ কর্মকর্তা। সে সময় এসব অপরাধের কোনো কূলকিনারা পায়নি পুলিশ। দীর্ঘ ৩৫ বছর ধরে খুনী রয়ে গিয়েছিলেন ধরা-ছোঁয়ার বাইরে।

ফ্রাঙ্কোয়ার অপরাধের মধ্যে আলোচিত ছিল ১১ বছরের এক কিশোরীকে হত্যার ঘটনা। ১৯৮৬ সালে প্যারিসে স্কুলে যাওয়ার সময় নিখোঁজ হয় ওই কিশোরী। তবে ফ্রাঙ্কোয়ার ঠিক কয়টি অপরাধের সঙ্গে জড়িত তা খোদ পুলিশও জানে না অভিযোগ করেছেন বিবাদি পক্ষের আইনজীবী। তার মতে ফ্রাঙ্কোয়ার অনেক অপরাধ কখনো পুলিশের সামনেই আসেনি।

৩৫ বছর আগের এসব অপরাধের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ২৪ সেপ্টেম্বর ফ্রাঙ্কোয়ার ডিএনএ’র নমুনা চায় পুলিশ। ২৭ সেপ্টেম্বর ফ্রাঙ্কোয়ার স্ত্রী জানান যে তিনি নিখোঁজ হয়েছেন। ওই দিনই একটি ভাড়া করা ফ্ল্যাট থেকে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়। লাশের পাশ থেকে একটি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করে পুলিশ। ওই সুইসাইড নোটে নিজের অপরাধের কথা স্বীকার করে গেছেন তিনি। এছাড়া ডিএনএ’তেও মিলেছে তার কথার প্রমাণ। বেশ কয়েকটি অপরাধ স্থলে তার ডিএনএন পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন

শ্যামনগর উপজেলা শিক্ষক সমিতির ভোটে সভাপতিঃ দিনেশ চন্দ্র মন্ডল, সম্পাদক মামুনুর রশিদ

বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতি সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলা শাখায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
উক্ত নির্বাচনে সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন দিনেশ চন্দ্র মন্ডল এবং সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন মুহাম্মদ মামুনুর রশিদ। আজ শুক্রবার সকালে শ্যামনগর উপজেলার নকিপুর সরকারি পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে উক্ত ভোট প্রদান করা হয়। সকাল ৮টা থেকে বিকাল চারটা পর্যন্ত উক্ত ভোট গ্রহণ চলে। ভোটারের সংখ্যা ছিল – ১০৬৮ জন৷ সভাপতি দিনেশ চন্দ্র মন্ডল মোট ভোট পেয়েছে ৪৮৮ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মিজানুর রহমান লাভলু ৪১৮ ভোট। সাধারণ সম্পাদক মুহাঃ মামুনুর রশিদ ভোট পেয়েছেন ৫৮৫ তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী মোহাদেচ্ছুর রহমান ভোট পেয়েছেন ৩৫৮। ভোটে কোনো প্রকার কারচুপির হওয়ার সুযোগ না থাকায় সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট হয়েছে বলে জানা গেছে। কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে ভোট গণনা শেষ হয়।