নীলাকাশ টুডেঃ স্বামীর ঘর ছেড়ে ২৫ বার পালিয়েছেন। প্রত্যেকবারই নতুন প্রেমিকের হাত ধরে। তবু স্ত্রী হিসেবে তাকেই গ্রহণ করতে চান স্বামী।

ভারতের আসামের নওগাঁ জেলার বাসিন্দা ওই মহিলা ও তার স্বামীর দাম্পত্য জীবন ১০ বছরের। তিন সন্তানও আছে তাদের। যার মধ্যে ছোটজনের বয়স তিন মাস। গত ৪ সেপ্টেম্বর তিন মাসের ওই শিশুটিকে প্রতিবেশীর বাড়িতে রেখে চলে যান ওই মহিলা। খবর, আনন্দবাজার।

শ্বশুরের অভিযোগ, এই নিয়ে ২৫ বার বাড়ি ছেড়ে পালিয়েছেন তার পুত্রবধূ। আর প্রতি বারই তিনি ঘর ছেড়েছেন নতুন প্রেমিকের সঙ্গে। সাথে ২২ হাজার টাকা এবং দামি গয়নাও নিয়ে গিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন তার স্বামী।

মহিলার স্বামী গ্যারেজে কাজ করেন। বাসায় ফিরে এসেই দেখেন স্ত্রী ও তার ছোট শিশুটি বাড়িতে নেই। খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন এক প্রতিবেশীর বাড়িতে শিশুটিকে রেখে গিয়েছেন তার স্ত্রী। ছাগলের খাবার আনতে যাচ্ছেন বলে তিনি শিশুটিকে রেখে যান। তার পর আর ফেরেননি।

যদিও এর পরও স্ত্রী আগের মতো ফিরে এলে তাকে মেনে নেবেন বলে জানিয়েছেন ওই ব্যক্তি।

আরও পড়ুন

অনার্স পড়ুয়া মেয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

নীলাকাশ টুডেঃ গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে ঘরের ফ্যানের সঙ্গে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় মারুফা সুলতানা (২২) নামে এক কলেজ ছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সকালে নিজ বাড়ি থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। মারুফা উপজেলার নাওরা কদমপুর গ্রামের সেলিম শেখের ছোট মেয়ে। তিনি সরকারি মুকসুদপুর কলেজের অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্রী ছিলেন।

স্থানীয় ও পরিবার সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার সকালে মারুফার মা বাজার করে ৯টার দিকে বাড়িতে ফিরে ঘরের দরজা বন্ধ দেখতে পান। এ সময় অনেক ডাকাডাকি করে তার কোনো সাড়াশব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে মারুফাকে ঘরের ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে থাকতে দেখে মুকসুদপুর থানায় খবর দেন।

মুকসুদপুর থানার ওসি তদন্ত মোঃ আমিনুর ইসলাম বলেছেন, সংবাদ পেয়ে মুকসুদপুর থানার এসআই আতিয়ার রহমান ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশের সুরতহাল প্রস্তুত করে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্য মামলা দায়ের হয়েছে। তবে কী কারণে মেয়েটি আত্মহত্যা করেছেন এ বিষয়ে কিছু নিশ্চিত হওয়া যায়নি।