নীলাকাশ টুডেঃ মহামারির মধ্যে এলো আরও একটি ঈদ। মুসলমানদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল আযহা। ঘরে ঘরে চলছে ঈদের আনন্দ। ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে নাড়ির টানে বাড়ি ফিরেছেন অনেক মানুষ। কিন্তু যানজটের কবলে পড়ে অনেকের ঈদ কাটছে মহাসড়কে। নাড়ির টানে বাড়ি ফেরা ঘরমুখো মানুষ ও অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে গত কয়েকদিন ধরে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। এ ধারাবাহিকতা রয়েই গেছে। যানজটের কারণে চালক ও যাত্রীদের পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের ভোগান্তি অনেক বেশি হচ্ছে। বুধবার সকা‌ল ৭টার দিকে ঢাকা- টাঙ্গাইল- বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়‌কে বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে কা‌লিহাতীর পুং‌লি পর্যন্ত ১৩ কি‌লো‌মিটার অং‌শে যানজট র‌য়ে‌ছে। এছাড়া ধীরগতি রয়েছে আরও ২০ কিলোমিটার জুড়ে।

 

এ কারণে শত শত মানুষের ঈদ কাটছে রাস্তায় যানবাহনের মধ্যে। এর আগে সোমবার রাত থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হয়। মঙ্গলবার সারা দিন ছিল ২০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজট। মহাসড়কের রাবনা, বিক্রমহাটি, রসুলপুর, পৌলি ও এলেঙ্গা এলাকায় এমন চিত্র দেখা যায়। গণপরিবহণ চললেও অনেকেই ঝুঁকি নিয়ে ট্রাকের উপরে করে যাতায়াত করছে। ফরিদ হোসেন নামে এক বাসযাত্রী বলেন, মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে গাজীপুর থেকে নওগাঁর উদ্দেশে রওনা দিয়েছি। বুধবার সকাল সোয়া ৬টা পর্যন্ত সেতু পার হতে পারিনি। ঈদ করতে হচ্ছে রাস্তায়। এলেঙ্গা হাইওয়ে থানার ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত জানান, মহাসড়কে ভোর থেকে গাড়ির চাপ রয়েছে।

 

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে স্বাভাবিক হতে পারে। যানজটের কারণে চালক ও যাত্রীদের পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের ভোগান্তি অনেক বেশি হচ্ছে। সড়কেই কেটে যাচ্ছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা। জেলা পুলিশ বিভাগ সূত্র জানায়, ঈদে যানজট নিরসনে মহাসড়কে ৬০৩ জন পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে। এ ছাড়া দুই শতাধিক হাইওয়ে পুলিশ রয়েছে।

 

আরও পড়ুন

 

ডেস্ক রিপোর্টঃ “স্বপ্ন সাধনা সাহসে এগিয়ে চলো আত্মবিশ্বাসে” এই শ্লোগান নীলাকাশ গ্রুপের। নীলাকাশ গ্রুপের চেয়ারম্যান ও সময়ের সাহসী কলম সৈনিক সত্য প্রকাশে আপসহীন “নীলাকাশ টুডে” এর নির্ভীক সুযোগ্য

সম্পাদক ও প্রকাশক মোঃ নুরুজ্জামানের পক্ষ থেকে পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে দেশবাসিকে ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

নীলাকাশ টুডে এর সংবাদ কর্মী, পাঠক পাঠিকা, বিজ্ঞাপনদাতা, সহ সকলকে সর্বপরি দেশের আপামর সাধারণ মানুষকে ঈদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন।

 

মোঃ নুরুজ্জামান এক শুভেচ্ছা বার্তায় জানিয়েছেন, বছর ঘুরে আবার পবিত্র ঈদুল আযহা। ঈদুল আজহা মানে আত্মার পরিশুদ্ধি, ধনী-গরিব, উঁচু- নিচু সব ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে সৌহার্দ্য ও সংহতি প্রকাশের উদার উৎসব।

ইসলাম ধর্মাবলম্বী ভাই- বোনদের ঘরে ঘরে আনন্দের বার্তা বয়ে নিয়ে এসেছে পবিত্র ঈদুল আযহা।

আমি সকল মুসলমানদের পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতি করোনা মহামারিতে অন্ধকার কাটিয়ে সকল মুসলমান পরিবারের মাঝে আনন্দ বয়ে আনবে।

শুভেচ্ছা বার্তায় নীলাকাশ গ্রুপের চেয়ারম্যান আরও জানিয়েছেন, ত্যাগের এ মহিমায় উদ্ভাসিত হোক প্রতিটি মুমিনের জীবন।

ত্যাগের মহিমায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ ও জাতির কল্যানে আত্মনিয়োগ করাসহ বিশ্বব্যাপি প্রাণঘাতী করোনা মহামারিতে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি ও মহান আল্লাহ্‌ সুবহানাহু ওয়া তা’আলার রহমতে ঈদুল আযহা উৎযাপন করি। এই হোক আমাদের দীপ্ত শপথ।

ঈদের এ আনন্দের মুহূর্তে আবেদন ঈদ যেহেতু আনন্দ ও উৎসবের। আপনার বাড়ির পাশে অসহায় গরীব মানুষটিকেও এ আনন্দ উৎসবে শরীক করুন।

আপনার সামান্য সহানুভূতি প্রতিবেশীকে অনেক আনন্দ উপহার দিতে পারে। সবার জন্য রইল ঈদের শুভেচ্ছা। ঈদ মোবারক।