নীলাকাশ টুডেঃ আগামী ৩১ জানুয়ারির মধ্যে ১২ থেকে ১৮ বয়সী ৪৪ লাখ শিক্ষার্থীদের টিকার প্রথম ডোজ দেয়া সম্পন্ন হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ড. দীপু মনি। সোমবার (১০ জানুয়ারি) সকালে সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ভর্তি ফরম, রেজিস্ট্রেশন বা আইডি দিয়ে শিক্ষার্থী প্রমাণ হলেই টিকা দেয়া হবে। এসময় মন্ত্রী বলেন, আমার এখন শিক্ষা প্রতিষ্ঠা বন্ধ করবো না। সারা দেশে শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় আনা হচ্ছে। আগামী এক মাসের মধ্যে সকল শিক্ষার্থীদের করোনা টিকায় আওতায় আনা হবে।

কত পার্সেন্ট সংক্রমণ বাড়লে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হবে সংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন মন্ত্রী বলেন, আমরা যেহেতু আমারা পুরো জনগোষ্টিকে করোনা পরীক্ষা করতে পারি নি। তাই আমরা যখন পরিস্থিতি বিবেচনা করে বুঝতে পারবো,বন্ধ করে দেওয়া দরকার তখন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিবে।

এসময় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, মন্ত্রিপরিষদ থেকে এক সিদ্ধান্ত আসে ১২ তারিখের পর এক ডোজ টিকা ছাড়া যেনো কেউ স্কুলে না আসে। সেটি ১২ তারিখ থেকে কার্যকর হবে। যারা টিকা নিবে না, তারা বাসায় বসে ক্লাস করবে।

এর আগে গতকাল ৯ (রোববার) রাতে প্রায় দেড় ঘণ্টাব্যাপী জাতীয় পরামর্শক কমিটির সঙ্গে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বৈঠক হয়। বৈঠকে টেকনিক্যাল কমিটির সদস্যরা শিক্ষামন্ত্রীকে নানা ধরনের পরামর্শ প্রদান করেন।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, আপাতত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রেখে শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিনেশনের প্রতি জোর দেওয়া হবে। যারা টিকা নিয়েছে তারা সশরীরে ক্লাসে উপস্থিত হবে। যারা এখনো টিকা নিতে পারেনি তারা বাসায় বসে অনলাইনে ক্লাসে যুক্ত হবে।

এছাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় আনা সম্ভব না হলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে আপাতত তাদেরও ক্লাস চলমান থাকবে।

এদিকে গত শনিবার (৮ জানুয়ারি) মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যে প্রায় সব শিক্ষার্থীর টিকাদান কার্যক্রম শেষ হবে এবং এরপর থেকেই টিকা না নেওয়া শিক্ষার্থীরা শ্রেণি কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবে না।