সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
সাতক্ষীরায় একজনের ফাঁসি শ্যামনগরে সড়ক দুর্ঘটনায় অফিসার সহ আহত ৩ সাতক্ষীরায় ট্রাকের ধাক্কায় গৃহবধূ নিহত হিরো আলমকে তথ্যমন্ত্রীর অভিনন্দন তাদেরকে হেদায়েত কর, না হলে মাটিতে মিশিয়ে দাও! শ্যামনগরে হরিণের মাংস সহ ডিঙ্গি নৌকা আটক বেনাপোলে ফেনসিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক ওয়াজ মাহফিলে দাওয়াত না পেয়ে আ.লীগের দু’পক্ষের বাড়িঘর ভাঙচুর হত্যা মামলার আসামিকে কুপিয়ে হত্যা গ্রাহকদের কাছ থেকে দাম বেশি নিয়ে ডাকাতি করছেন গ্যাস ব্যবসায়ীরা! স্ত্রীকে কুপ্রস্তাব, ব্যবসায়ীকে বাসায় ডেকে শেষ করলেন স্বামী ঢাকায় ‘ছোঁ পার্টির’ ১৬ জন গ্রেফতার স্বর্ণের দাম কমল ভরিতে যত বাংলাদেশ ও পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক ফেসবুক লাইভে এসে যা বললেন হিরো আলম

বন্ধ হচ্ছে বিবিসি বাংলার রেডিও সম্প্রচার

রিপোর্টারের নাম
আপডেট শনিবার, ৩১ ডিসেম্বর, ২০২২, ২:২৯ অপরাহ্ন

নীলাকাশ টুডেঃ ৮১ বছর পর আজ বন্ধ হচ্ছে বিবিসি বাংলার রেডিও সম্প্রচার। শেষ দুটি অধিবেশন প্রচারিত হবে শনিবার রাতে। সংবাদ প্রবাহ নামের অনুষ্ঠানটি এরই মধ্যে শেষবার প্রচারিত হয়ে গেছে। আর সংবাদ পরিক্রমা শেষবার প্রচারিত হবে রাত সাড়ে ১০টায়। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করবেন লন্ডনে মানসী বড়ুয়া আর ঢাকায় আকবর হোসেন

বিবিসি ওয়ার্ল্ড সেবায় বিশাল পরিবর্তন আসায় বাংলা রেডিও সম্প্রচার বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বর্তমানে জোর দেওয়া হচ্ছে ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে। গেল সেপ্টেম্বর মাসে ওয়ার্ল্ড সার্ভিস কর্তৃপক্ষ বাংলায় রেডিও সম্প্রচার বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয়।

বিবিসি বাংলার সম্পাদক সাবির মোস্তফা বলেন, ‘বিবিসি বেশ কিছু দিন থেকে ডিজিটাল প্লাটফর্মের ওপর বেশি জোর দিচ্ছে, এখন এই পরিবর্তনের প্রক্রিয়া আরও ত্বরান্বিত করা হবে।’

রেডিও শ্রোতাদের আহ্বান জানানো হচ্ছে, তারা যেন সংবাদ এবং সাময়িক প্রসঙ্গ নিয়ে প্রতিবেদন, বিশ্লেষণ, সাক্ষাতকার ইত্যাদির জন্য ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করেন। অর্থাৎ, বিবিসি বাংলার নিজস্ব ওয়েবসাইট, ইউটিউব চ্যানেল, ফেসবুক পেজ এবং টুইটার ব্যবহারের আহ্বান জানানো হয়েছে।

বিগত আট দশকে বিবিসি বাংলার রেডিও অনুষ্ঠানমালা এবং ব্যবস্থাপনা বিভিন্ন ধরনের পরিবর্তনের মধ্যে দিয়ে গিয়েছে। রেডিওর চূড়ান্ত সম্প্রসারণ ঘটে ২০০৭ সালের জানুয়ারি মাসে যখন চতুর্থ একটি দৈনিক অধিবেশন শুরু করা হয়। তার চার বছরের মাথায় সকালের দুটি রেডিও অধিবেশন লন্ডন থেকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়, এবং বাংলাদেশে কর্মরত বিবিসি বাংলার সাংবাদিক সংখ্যায় উল্লেখযোগ্য সম্প্রসারণ ঘটে।

তবে রেডিওর শ্রোতা কমে যাওয়ায় বিবিসি বাংলাদেশকে নিয়ে নতুন করে ভাবতে শুরু করে। চ্যানেল আই-এর সহযোগিতায় ‘বিবিসি প্রবাহ’ নামক সাপ্তাহিক অনুষ্ঠান নিয়ে ২০১৫ সালে বিবিসি বাংলা বাংলাদেশের টেলিভিশন জগতে প্রবেশ করে।

কয়েক দশক ধরে বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে রেডিও শ্রোতা সংখ্যা ক্রমশ কমে আসছে, বিশেষ করে সংবাদ এবং সাময়িক প্রসঙ্গের ক্ষেত্রে। বিবিসির গবেষণায় দেখা গেছে বিভিন্ন দেশে মানুষ সংবাদের চাহিদা মেটানোর জন্য টেলিভিশন এবং ডিজিটাল মাধ্যমকে বেছে নিচ্ছেন।

উল্লেখ্য, ১৯৪১ সালের ১১ অক্টোবর সাপ্তাহিক নিউজলেটার দিয়ে বিবিসি বাংলা রেডিওর যাত্রা শুরু হয়। ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় বিবিসির সংবাদের ওপর সাধারণ মানুষের আস্থা বেড়ে যায়।

পরে ২০১১ সালে বিবিসি রেডিওর সকালের দুটি অধিবেশন লন্ডন থেকে ঢাকায় স্থানান্তর করা হয়। এরপর থেকেই দেশে বাড়তে থাকে বিবিসি বাংলার সাংবাদিকের সংখ্যা।


এই বিভাগের আরো খবর