নীলাকাশ টুডেঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে টিকা নিতে আসা শিক্ষার্থীদের উপচেপড়া ভিড় দেখা গেছে। ভিড়ের কবলে টিকা দিতে অপেক্ষমাণ এক শিক্ষার্থী হঠাৎ অচেতন হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে গেলে তাকে হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

মঙ্গলবার দিনব্যাপী সরাইল অন্নদা সরকারি উচ্চবিদ্যালয়ে অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রে শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়া হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, সরাইল উপজেলায় ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সের শিক্ষার্থীদের টিকা দেওয়ার কার্যক্রম গত রোববার থেকে শুরু হয়েছে। তৃতীয় দফায় মঙ্গলবার সকালে সরাইল পাইলট বালিকা উচ্চবিদ্যালয়, সৈয়দা হোছেনা আফজাল উচ্চবিদ্যালয় ও দেওড়া আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়সহ ৪টি বিদ্যালয়ের দেড় হাজারের বেশি শিক্ষার্থী টিকা দিতে সকাল থেকে সরাইল অন্নদা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের অস্থায়ী টিকাদান কেন্দ্রে আসে।

লাইনে দাঁড় করিয়ে ক্রমান্বয়ে শিক্ষার্থীদের টিকা দান কার্যক্রম চলার একপর্যায়ে বিকাল ৩টার দিকে লাইনে অপেক্ষমাণ অন্তরা ভৌমিক (১৭) নামে দশম শ্রেণির এক শিক্ষার্থী অচেতন হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এ সময় তাকে উদ্ধার করে সরাইল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়।

সরাইল অন্নদা সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে টিকা নিতে আসা সহস্রাধিক অপেক্ষমাণ শিক্ষার্থীকে ক্রমান্বয়ে বিদ্যালয়ের একটি শীততাপ নিয়ন্ত্রিত কক্ষে ৯ জন নারী নার্স ও ১ জন পুরুষ নার্স শিক্ষার্থীদের করোনার টিকা দেন বলে স্থানীয় সূত্র জানায়।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নোমান মিয়া বলেন, অসুস্থ শিক্ষার্থী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছে। তাকে পরে টিকা দেওয়া হবে। এখানে সাড়ে ১৬ হাজার শিক্ষার্থীকে টিকা দেওয়া হবে। গত দুই দিনে ৩ হাজার ৬০ জনকে টিকা দেওয়া হয়েছে। আজ সরাইল উপজেলার চারটি স্কুলের মোট ১ হাজার ৯৮০ জন শিক্ষার্থীকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। বিকাল পৌনে ৫টা পর্যন্ত এ টিকা দেওয়া হয়। শিক্ষার্থীদের চাপ কমানোর জন্য ১৫ জানুয়ারি থেকে অরুয়াইল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ে আরেকটি টিকা কেন্দ্র খোলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।