নীলাকাশ টুডেঃ যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল ট্রেড কমিশনের নতুন চেয়ারম্যান হিসেবে লিনা খানের নাম ঘোষণা করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। হোয়াইট হাউসের কর্মকর্তারা গতকাল মঙ্গলবার বিষয়টি নিশ্চিত করেন গণমাধ্যমকে। ফেডারেল ট্রেড কমিশনের (এফটিসি) কাজ মূলত ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানগুলোর একচেটিয়া আধিপত্য কমিয়ে তাদের মধ্যে প্রতিযোগিতা বাড়ানো।

সে সঙ্গে গ্রাহকের অধিকার রক্ষার দায়িত্বও কমিশনটির। ই-কমার্স সেবাদাতা আমাজনের বড় সমালোচক হিসেবে পরিচিত লিনা খান। অসম প্রতিযোগিতা হ্রাসের জন্য কাজ করছেন দীর্ঘদিন ধরেই। এ–বিষয়ক আইনগুলোতে পরিবর্তনের জন্যও সোচ্চার তিনি। ধারণা করা হচ্ছে, ‘বিগ টেক’ হিসেবে পরিচিত অ্যাপল, আমাজন, গুগল, ফেসবুকের মতো বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর খড়্গহস্ত হতেই লিনা খানকে বেছে নেওয়া হয়েছে। মার্কিন সিনেটে গতকাল মঙ্গলবার ৬৯-২৮ ভোটে নির্বাচিত হন তিনি।

আরও পড়ুন

 

ফের ভারতীয় সীমান্ত লাদাখে চীন সামরিক তৎপরতা শুরু করেছে। পূর্ব লাদাখের কাছে জিংজিয়াং প্রদেশের হোটান বিমানঘাঁটি থেকে আকাশে উড্ডয়ন করানো হয়েছে এইচ-২০ বোমারু বিমান বলে জানা গেছে। গত ৮ জুন থেকে শুরু হয়ে ২২ জুন পর্যন্ত চলছে। এ ঘটনায় নয়াদিল্লি উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

জানা গেছে, ভারত-চীন সীমান্তের কারাকোরাম পাসের উত্তর-পূর্বে প্রায় ২৫০ কিলোমিটার দূরে রয়েছে চীনের হোটান বিমান বাহিনীর ঘাঁটি। লাদাখের প্যাংগং হ্রদের ৪ নম্বর ফিঙ্গার এলাকা থেকে ওই বিমানঘাঁটির দূরত্ব মাত্র ৩৮০ কিলোমিটার। ফলে রাডারে প্রায় অদৃশ্য এইচ-২০ বোমারু বিমানের মহড়ায় রীতিমতো উদ্বেগ বেড়েছে ভারতের প্রতিরক্ষা মহলে।

বিশ্লেষকদের মতে, আগামী কয়েক মাসের মধ্যেই চীনা সেনাবাহিনীতে শামিল হবে এই যুদ্ধবিমান। মূলত ভারতের অত্যাধুনিক রাফালে ফাইটার জেটগুলোর মোকাবিলায় চীনের এই নতুন যুদ্ধবিমান মোতায়েন করতে তৎপরতা চালাচ্ছে বেইজিং। এ নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে নতুন করে সংকট আরও বাড়বে।

 

আরো খবরঃ

টানা ১১ দিন গাজা উপত্যকায় ইসরায়েলের বর্বর হামলায় নারী-শিশুসহ আড়াই শতাধিক ফিলিস্তিনির প্রাণহানি হয়েছে। এরপর হামাসের চাপে যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হলেও নিরীহ ফিলিস্তিনিদের ওপর ইসরায়েলি বর্বরতা অব্যাহত রয়েছে। জানা গেছে, পশ্চিম তীরে যাযাবর বেদুইন জনগোষ্ঠির অন্তর্ভুক্ত ফিলিস্তিনি পরিবারগুলোর তাবু ধ্বংস করে দিয়েছে ইসরায়েল বাহিনী। খবর আনাদোলু এজেন্সির।

গণমাধ্যমটি বলছে, গত রবিবার অধিকৃত পশ্চিম তীরের রামাল্লার উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত তাইব গ্রামের কাছে বেদুইনদের সব ঘরবাড়ি ধ্বংস করার এ ঘটনা ঘটে। অনেক আগে থেকেই এসব ফিলিস্তিনির বাড়িঘর ধ্বংস করার পরিকল্পনা ছিলো। ইসরায়েল চাইছে বেদুইন সম্প্রদায়ের ওই এলাকাটিকে খালি করে ইহুদি বসতি নির্মাণ করে দখলদার কোম্পানিগুলোকে সুবিধা দিতে।