নীলাকাশ টুডেঃ অসামাজিক কার্যকলাপের দায়ে বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহারে আবাসিক হোটেলে পুলিশ ১০ সেপ্টেম্বর শুক্রবার সকালে অভিযান চালিয়ে দুই নারীসহ তিন জনকে গ্রেপ্তার করে।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, একজনের বাড়ি কুমিল্লা জেলার চান্দিনা উপজেলা সদরে, একজনের বাগেরহাট জেলা সদরের দশআনি গ্রামে ও আরেক জন বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার স্টেশন কলোনীর বাসিন্দা।

 

আদমদীঘি থানার অফিসার ইনচার্জ জালাল উদ্দীন জানায়, সান্তাহার আবাসিক হোটেলে অনেকদিন যাবৎ অসামাজিক কাজ বন্ধ ছিল। শুক্রবার সকালে ফের অসামাজিক কাজ চলছে এমন সংবাদের ভিত্তিতে মুন হোটেলে অভিযান চালিয়ে দুই নারীসহ মোট তিন জনকে গ্রেপ্তার করে দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন

প্রেমে প্রত্যাখ্যান, তরুণীর প্রেমিক গ্রেফতার

নীলাকাশ টুডেঃ ভারতে প্রেম প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছিলেন ২১ বছরের তরুণী। প্রতিশোধ নিতে তরুণীর বাড়িতে ‘সেক্স টয়’ পাঠিয়েছিলেন। এর পর তরুণীর ফোন নম্বর পর্ন সাইটে আপলোড করেন। ঘটনার মাস খানেক পর অভিযুক্তকে গ্রেফতার করল মুম্বই পুলিশ। অভিযুক্তের নাম কুণাল অঙ্গলকার।

পুলিশ সূত্র ও আনন্দ বাজার পত্রিকা জানিয়েছে, অভিযুক্ত কুণাল মাসখানেক ধরেই ওই তরুণীর বাড়িতে ‘সেক্স টয়’ পাঠাচ্ছেন। ই-কমার্স সাইট থেকে ক্যাশ অন ডেলিভারি পদ্ধতিতে তরুণীর বাড়িতে সেগুলি পাঠানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। ওই তরুণী প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করার পর থেকেই এই ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

বাড়িতে ‘সেক্স টয়’ আসা নিয়ে ফেব্রুয়ারি মাসে মুম্বইয়ের মালাড থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তরুণী। ভারতীয় দণ্ডবিধি এবং তথ্যপ্রযুক্তি আইনে মামলা দায়ের করে পুলিশ। পরে মুম্বই পুলিশের সাইবার ক্রাইম বিভাগে স্থানান্তরিত করা হয় এই মামলা।

মামলা পেয়ে মুম্বইয়ের পুলিশের সাইবার ক্রাইম বিভাগ ক্যুরিয়ার সংস্থার মাধ্যমে অভিযুক্তের বাড়ির ঠিকানা বার করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু ক্যুরিয়ার সংস্থাকে নিজের নাম এবং বাড়ির ঠিকানা দেননি অভিযুক্ত। এর পর পুলিশ ভিপিএন সংক্রান্ত তথ্য জোগাড়ের চেষ্টা করে। তা করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে, প্রতিবারই ‘সেক্স টয়’ পাঠানোর সময় আইপি অ্যাড্রেস পরিবর্তন করেছেন অভিযুক্ত। শেষমেশ প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের সহায়তায় অভিযুক্ত কুণালের খোঁজ পায় পুলিশ। তার পর অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে।