সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:২৫ পূর্বাহ্ন
নোটিশঃ
সাতক্ষীরায় একজনের ফাঁসি শ্যামনগরে সড়ক দুর্ঘটনায় অফিসার সহ আহত ৩ সাতক্ষীরায় ট্রাকের ধাক্কায় গৃহবধূ নিহত হিরো আলমকে তথ্যমন্ত্রীর অভিনন্দন তাদেরকে হেদায়েত কর, না হলে মাটিতে মিশিয়ে দাও! শ্যামনগরে হরিণের মাংস সহ ডিঙ্গি নৌকা আটক বেনাপোলে ফেনসিডিল সহ দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক ওয়াজ মাহফিলে দাওয়াত না পেয়ে আ.লীগের দু’পক্ষের বাড়িঘর ভাঙচুর হত্যা মামলার আসামিকে কুপিয়ে হত্যা গ্রাহকদের কাছ থেকে দাম বেশি নিয়ে ডাকাতি করছেন গ্যাস ব্যবসায়ীরা! স্ত্রীকে কুপ্রস্তাব, ব্যবসায়ীকে বাসায় ডেকে শেষ করলেন স্বামী ঢাকায় ‘ছোঁ পার্টির’ ১৬ জন গ্রেফতার স্বর্ণের দাম কমল ভরিতে যত বাংলাদেশ ও পাকিস্তানি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক ফেসবুক লাইভে এসে যা বললেন হিরো আলম

আজ আট স্থানে বিএনপির সমাবেশ, কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে আ.লীগ  

নীলাকাশ টুডেঃ
আপডেট বুধবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২৩, ১:১৯ পূর্বাহ্ন

আবার রাজপথে উত্তাপ দেখা দিয়েছে দেশের বিরোধী দল বিএনপি ও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কর্মসূচি ঘিরে।আজ রাজধানীর আট স্থানে বিএনপি সমাবেশ করবে।অন্যদিকে আওয়ামী লীগও নানা কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে।বিএনপির সমাবেশকে কেন্দ্র করে দলের কর্মীদের সতর্ক থাকার নির্দেশও দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

রাজধানীর আট স্থানে বিএনপির সমাবেশ: সরকারের বিরুদ্ধে চলমান যুগপৎ আন্দোলনের চতুর্থ কর্মসূচি নিয়ে আজ মাঠে নামছে বিএনপি ও সমমনা রাজনৈতিক দলগুলো। ঢাকাসহ সব মহানগর ও জেলা সদরে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে তারা। রাজধানীতে আট স্থানে পালন করা হবে এ কর্মসূচি। এ সমাবেশ থেকে ৪ ফেব্রুয়ারি সব মহানগর ও জেলায় আবারও বিক্ষোভ সমাবেশের ঘোষণা আসবে।

নতুন কর্মসূচি প্রসঙ্গে বিএনপির সিনিয়র এক নেতা বলেন, ৪ ফেব্রুয়ারি সব মহানগর ও জেলায় ফের বিক্ষোভ কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত হয়েছে। দশ দফার পাশাপাশি বিএনপিসহ সমমনাদের কর্মসূচির দিন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ শান্তি সমাবেশের নামে বিরোধী দলের ওপর হামলা ও পুলিশের জুলুম-নির্যাতনের প্রতিবাদে এ কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। এর সঙ্গে গ্যাস ও বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধির বিষয়টিও যুক্ত করা হতে পারে।

এদিকে আগের গণমিছিল, গণঅবস্থান ও বিক্ষোভ মিছিল সমাবেশ-এ তিন কর্মসূচিতে বিএনপি নেতাকর্মীদের ব্যাপক উপস্থিতি ছিল। কিন্তু সমমনা রাজনৈতিক দলগুলোর উপস্থিতি সন্তোষজনক ছিল না। তাই যুগপৎ আন্দোলনের চতুর্থ কর্মসূচি বিক্ষোভ সমাবেশে নেতাকর্মীদের উপস্থিতি বাড়াতে কড়া নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেভাবেই প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো। গত কর্মসূচিতে গণতন্ত্র মঞ্চের অন্যতম শরিক গণঅধিকার পরিষদ অংশ না নিলেও আজকে তারা থাকবেন। তবে জামায়াতে ইসলামী আনুষ্ঠানিকভাবে এদিন কোনো কর্মসূচি দেয়নি।

বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান বরকতউল্লা বুলু বলেন, জনগণের দাবি আদায়ে আমরা শান্তিপূর্ণভাবে কর্মসূচি পালন করছি। কিন্তু এসব কর্মসূচিতেও ক্ষমতাসীনরা নানাভাবে বাধা দিচ্ছে। সব বাধা উপেক্ষা করে নেতাকর্মীদের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও আমাদের এ কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছে। আজ ঢাকাসহ সারা দেশে বিক্ষোভ সমাবেশেও ব্যাপক উপস্থিতি হবে বলে আশা করি।

নয়াপল্টনসহ রাজধানীর আট স্থানে সমাবেশ : দুপুর ২টায় নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ করবে বিএনপি। এতে প্রধান অতিথি থাকবেন মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, ড. আবদুল মঈন খান ও সেলিমা রহমান বিশেষ অতিথি থাকবেন।

বিএনপির দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স জানান, ঢাকা ছাড়া বিভিন্ন মহানগরে কেন্দ্রীয় ১১ নেতা প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন। স্থায়ী কমিটির সদস্যদের মধ্যে বরিশালে গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চট্টগ্রামে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী এবং রাজশাহীতে থাকবেন ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু। ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্যে গাজীপুরে বরকতউল্লা বুলু, কুমিল্লায় মো. শাহজাহান, সিলেটে ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, ময়মনসিংহে শামসুজ্জামান দুদু, রংপুরে আহমেদ আজম খান ও খুলনায় প্রধান অতিথি থাকবেন নিতাই রায় চৌধুরী। যুগ্ম মহাসচিবদের মধ্যে নারায়ণগঞ্জে যাবেন সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল এবং ফরিদপুরে থাকবেন হাবিব উন নবী খান সোহেল।

বিএনপি ছাড়াও রাজধানীতে সমমনা দলগুলো সাত স্থানে সমাবেশ করবে। বেলা সাড়ে ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গণতন্ত্র মঞ্চ, বেলা ৩টায় বিজয়নগর পানির ট্যাংক সংলগ্ন সড়কে ১২-দলীয় জোট, বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে ১২ দলীয় জাতীয়তাবাদী সমমনা জোট, দুপুর আড়াইটায় পূর্ব পান্থপথের এফডিসি সংলগ্ন দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি), বেলা ১১টায় আরামবাগে মোস্তফা মহসীন মন্টুর নেতৃত্বাধীন গণফোরাম ও বাবুল সর্দার চাখারীর নেতৃত্বাধীন বাংলাদেশ পিপলস পার্টি, বেলা ১১টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের (পূর্ব প্রান্তে) সামনে চার দলের গণতান্ত্রিক বাম ঐক্য সমাবেশ করবে। এছাড়া ১৫ সংগঠনের ‘সমমনা পেশাজীবী গণতান্ত্রিক জোট বেলা ১১টায় পুরানা পল্টন মোড়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে বলে জানায় জোটের সমন্বয়কারী মুহাম্মদ সাইদুর রহমান।’

নানা কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে আ.লীগ: বিভিন্ন ইস্যুতে সভা-সমাবেশ কর্মসূচির মধ্য দিয়ে আজও মাঠে থাকবে আওয়ামী লীগ। রাজধানীর একাধিক স্থানে সমাবেশ ও অবস্থান কর্মসূচি এবং থানা-ওয়ার্ডে সতর্ক পাহারার মাধ্যমে মাঠ দখলে রাখবে ক্ষমতাসীন দল ও তাদের সহযোগী সংগঠনগুলো। বিএনপি অব্যাহত আন্দোলনের জবাবে সরাসরি পালটা কর্মসূচি না দিয়ে দলের নিয়মিত কর্মসূচির মাধ্যমেই মাঠে থাকবেন তারা। এছাড়া রাজধানীসহ সারা দেশে দলের নেতাকর্মীদের সার্বক্ষণিক সতর্ক থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আজ মহানগর ও জেলা পর্যায়ে সমাবেশ কর্মসূচি পালন করবে বিএনপি। এর আগে ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় গণসমাবেশ, ৩০ ডিসেম্বর গণমিছিল এবং ১৬ জানুয়ারি সমাবেশ এবং মিছিল কর্মসূচি পালন করে দলটি। এসব কর্মসূচির দিনও নানা কর্মসূচি নিয়ে মাঠে ছিল আওয়ামী লীগ। পাড়া-মহল্লা এবং প্রতিটি থানা-ওয়ার্ডে সতর্ক পাহারায় ছিল দলটির নেতাকর্মীরা। তবে কর্মসূচি ঘিরে ঢাকায় আওয়ামী লীগ বিএনপিকে সেভাবে মুখোমুখি হতে দেখা যায়নি। বিএনপির কর্মসূচিস্থল থেকে দূরে এসব কর্মসূচি পালন করেছে ক্ষমতাসীনরা।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক রিয়াজ উদ্দিন রিয়াজ জানান, আজ সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু ২৩ এভিনিউতে গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষ্যে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। অন্যদিকে ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক রানা জানান, বেলা ৩টায় বনানী মডেল স্কুলে শীতবস্ত্র বিতরণ করবেন তারা। দুটি অনুষ্ঠানেই আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের প্রধান অতিথি হিসাবে থাকবেন। এছাড়া দলের কেন্দ্রীয় ও মহানগরের নেতারা উপস্থিত থাকবেন।

আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন-বিএনপি কর্মসূচি ঘিরে সহিংসতা ও বিশৃঙ্খলা হতে পারে। এমন ধারণা থেকেই দলের হাইকমান্ড থেকে একাধিকবার দলীয় নেতাকর্মীদের সতর্ক থাকার ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। ‘অতীতে বিএনপি নেতারা সহিংস কর্মকাণ্ড করে দেশ ও মানুষের ক্ষতি করেছে’-এমন অভিযোগ করে তারা বলছেন, ভবিষ্যতে কেউ যেন আর কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা ও সহিংসতা করে জনগণের জানমালের ক্ষতি করতে না পারে সে ব্যাপারে সতর্ক রয়েছেন তারা।

ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান বলেন, শীতবস্ত্র বিতরণ কর্মসূচির পাশাপাশি আমাদের নেতাকর্মীরা (ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের) প্রতিটি থানা-ওয়ার্ডে সতর্ক অবস্থানে থাকবে দলের নেতাকর্মীরা।

অন্যদিকে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. হুমায়ুন কবির বলেন, গণঅভ্যুত্থান দিবস উপলক্ষ্যে আমাদের আলোচনা সভা রয়েছে। এছাড়া কেউ যেন কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা করতে না পারে সে ব্যাপারে আমাদের নেতাকর্মীরা সতর্ক থাকবেন।

এছাড়া সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যান্ত রাজধানীর বিভিন্ন ওয়ার্ড-ইউনিট ও থানার নেতাকর্মীদের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে সতর্কাবস্থান নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পৃথক কর্মসূচি নিয়ে মাঠে থাকবে যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেক লীগ, কৃষক লীগ, মৎস্যজীবী লীগসহ দলটির সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরা। মাঠে থাকবেন আওয়ামী লীগের সংসদ-সদস্য এবং দলীয় কাউন্সিলরাও।


এই বিভাগের আরো খবর